বড়দের জোকসঃ সন্তানলাভের জন্য কথা বলার দরকার নেই হুজুর।

“ক কাব্য”

কলিকাতার কবিভাবাপন্ন, কাব্যানুরাগী কানাই কর্মকারের কাজলাঞ্জনকনিষ্ঠা কন্যা কামিনী কর্মকার,
কপাল কুঞ্চিত করিয়া, কঙ্কন কচলাইয়া, কাকা কেদার কর্মকারকে কানেকানে কোমল কন্ঠে কহিলো,
কাকা কুঞ্জে কৃষ্ণ-কালো কোকিল কাকুতি করিতে করিতে কুহু কুহুকরিলেও কলিকাতার কতিপয় কালো কাক,
কোকাইতে-কোকাইতে কোন কারণে কুলক্ষনে কা-কা করে?
কোন কালের কাকেরা কা-কা করিয়া কাকে কাকা কহিতেছে?
কুহেলী কাকেদের কাকা কে?
কটুভাষী, কৃপণ কেদার কাকা কটাক্ষে কটমট করিয়া কহিলেন- কন্যা,কপাল কুঞ্চিত করিতেছো কেনো?
কোকিল কুহু কুহু করিলে, কাকও কা-কা করিবে,
কেনোনা কা-কা করাই কাকের কাজ, কাজেই কাক কা-কা করে।
ক্লিষ্ট কাকের কপালে কা-কা করাই কঠিন কর্তব্য। কাকেদের কাকাকোনো কালেই কেহনা

২।
ডিভোর্স

আদালতে ডিভোর্স বিষয়ক মামলা চলছে।
জজ সাহেবঃ আপনি ডিভোর্স চাইছেন কেন?
মিঃ জোনাথনঃ আজ দুবছর আমার স্ত্রীর সাথে কোন বাক্যালাপ নেইহুজুর।
জজ সাহেবঃ কিন্তু কিছুক্ষণ আগে বললেন, কিছুদিন আগেই আপনারস্ত্রীর একটি সন্তান হয়েছে?
মিঃ জোনাথনঃ সন্তানলাভের জন্য কথা বলার দরকার নেই হুজুর।

প্রেসিডেন্টের অজ্ঞতা

জিম্বাবোয়ের প্রেসিডেন্টের একশ জন প্রেমিকা । তাদের মধ্যে একজনএইডস্ এ আক্রান্ত। কিন্তু ঠিক কে, প্রেসিডেন্ট তা জানেন না ।
আমেরিকার প্রেসিডেন্টের একশ জন দেহরক্ষীর মধ্যে একজন রাসি্যানএজেন্ট । কিন্তু ঠিক কে, তা তিনি জানেন না ।
সোভিয়েত প্রেসিডেন্টের একশ জন অর্থনৈতিক উপদেষ্টার মধ্যেএকজনের কাছে সঠিক অর্থনৈতিক কর্মসূচীটি আছে । কিন্তু ঠিক কারকাছে, তা তিনি জানেন না ।

গোপালকে ও রামবাবু

গোপালকে বলছেন রামবাবু, এখানে বাঁদরের বড্ড উৎপাত।তোমাকে তোদেখতে বেশ বাঁদরের মতোই! ওদের দলে তোমাকে ছেড়ে দিলে কি হবেবলতো? তুমি নিশ্চই কখনো বাঁদর দেখনি?
আজ্ঞে না! আপনার মত বাঁদর আমি আগে আর কক্ষনো দেখিনি!
গোপালের সোজা-সাপ্টা উত্তর।

মৎস শিকার

সমুদ্রতীরে মাছ ধরছেন এক দম্পতি । স্বামীর বঁড়শিতে টোপ গিলল একবিশাল মাছ । কিন্তু হুইল গুটিয়ে সেটাকে তীরে আনার আগেই সুতো-মাছসব জড়িয়ে গেল সমুদ্র শৈবালের স্তুপে । স্বামী চিৎকার করে স্ত্রীকেবললেন :
ওগো জলদি কর ! ঝাঁপ দাও ! সাঁতরে চলে যাও ওই শ্যাওলাগুলোর কাছে! ডুব দিয়ে সুতোটা ছাড়াও । নইলে হাঙরগুলো মাছটাকে টুকরো টুকরোকরে ফেলবে !

কফি ও কোকো

ক্রেতা কাউন্টারে দাম মেটাতে গেছেন । ম্যানেজার প্রশ্ন করেন, কীখেয়েছেন স্যার ? কফি না কোকো ?
আমি তো ঠিক বলতে পারছি না, ক্রেতা বলেন, তবে জিনিসটা একেবারেঅখাদ্য । কেমন টুথপেস্টের মতো লাগল ।
ওঃ ! তাহলে ওটা কফি স্যার ! দশ টাকা দেবেন । আমাদের কোকোর স্বাদএকেবারে গঁদের আঠার মতো !

গোল্ডফিশ

দুটো গোল্ডফিশ ঝকঝকে অ্যাকোয়ারিয়ামের মধ্যে সাঁতার কাটছে ।হঠাৎ একটি আরেকটিকে প্রশ্ন করে :
— আচ্ছা আপনি ঈশ্বরে বিশ্বাস করেন ?
দ্বিতীয় গোল্ডফিশটি সামনের পাখনাদুটো মাথায় ঠেকিয়ে উত্তর দেয় :
— বলেন কি মশাই ? ঈশ্বরে বিশ্বাস করব না ? অবশ্যই করি । দিনে দুবারআমাদের এ ঘরের জল পালটে দেন কে তাহলে ?

——————————————————————————–

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *